সিলেট ০৪:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে বলে আভাস দিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীন কেন্দ্রটি শুক্রবার নদ-নদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাসে এমন আভাস দেয়।

উজান থেকে নেমে আসা ঢলে সিলেটে আকস্মিক বন্যা দেখা দেয়। এতে বুধবার রাতের মধ্যে তলিয়ে যায় পাঁচ উপজেলা। বৃহস্পতিবার আরও দুই উপজেলা প্লাবিত হয়। এছাড়া নগরেও ঢুকছে পানি।

জেলায় পানিবন্দি অবস্থায় আছেন প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ মানুষ।

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, ব্রহ্মপুত্র ও যমুনার পানি সমতল বাড়ছে, যা আগামী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। গঙ্গা, পদ্মা নদীর পানি সমতল কমছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে।

পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়, ‘দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদীসমূহের পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে। আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় সিলেট জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।’

এদিকে, শুক্রবার সিলেটের নদনদীর পানি কিছুটা কমেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেট কার্যালয়ের তথ্যমতে, শুক্রবার সকাল ৯টায় সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৯৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সিলেট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ০ দশমিক ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে, জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজারে কুশিয়ারা দুটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এরমধ্যে অমলসিদ পয়েন্টে ২০৭ সেন্টিমিটার ও শেওরা পয়েন্টে ১৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় সুরমা নদী কানাইঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ১৩৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছিল। একই সময়ে কুশিয়ারা নদীর পানি জকিগঞ্জের অমলসিদ পয়েন্টে বিপদসীমার ২১৩ সেন্টিমিটার এবং শেওলা পয়েন্টে ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এছাড়া, সারি গোয়াইন পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ৩৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

যেভাবে দেখা যাবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র ম্যাচ

বিষয়ঃ

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

প্রকাশিত হয়েছেঃ ১১:৩৫:০৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩ জুন ২০২৪

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে বলে আভাস দিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীন কেন্দ্রটি শুক্রবার নদ-নদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাসে এমন আভাস দেয়।

উজান থেকে নেমে আসা ঢলে সিলেটে আকস্মিক বন্যা দেখা দেয়। এতে বুধবার রাতের মধ্যে তলিয়ে যায় পাঁচ উপজেলা। বৃহস্পতিবার আরও দুই উপজেলা প্লাবিত হয়। এছাড়া নগরেও ঢুকছে পানি।

জেলায় পানিবন্দি অবস্থায় আছেন প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ মানুষ।

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আভাস

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, ব্রহ্মপুত্র ও যমুনার পানি সমতল বাড়ছে, যা আগামী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। গঙ্গা, পদ্মা নদীর পানি সমতল কমছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে।

পূর্বাভাসে উল্লেখ করা হয়, ‘দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদীসমূহের পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে। আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় সিলেট জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।’

এদিকে, শুক্রবার সিলেটের নদনদীর পানি কিছুটা কমেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেট কার্যালয়ের তথ্যমতে, শুক্রবার সকাল ৯টায় সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৯৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সিলেট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ০ দশমিক ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে, জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজারে কুশিয়ারা দুটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এরমধ্যে অমলসিদ পয়েন্টে ২০৭ সেন্টিমিটার ও শেওরা পয়েন্টে ১৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় সুরমা নদী কানাইঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ১৩৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছিল। একই সময়ে কুশিয়ারা নদীর পানি জকিগঞ্জের অমলসিদ পয়েন্টে বিপদসীমার ২১৩ সেন্টিমিটার এবং শেওলা পয়েন্টে ২০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এছাড়া, সারি গোয়াইন পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ৩৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

যেভাবে দেখা যাবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র ম্যাচ