সিলেট ০২:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হাজতে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার: এসআই প্রত্যাহার

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে থানা হাজতে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি নির্যাতনের সত্যতা পায়নি। তবে এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে এসআই মনিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ঘটনার ৪ দিন পর রোববার (৩১ ডিসেম্বর) তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও তদন্ত কমিটির সদস্য পলাশ রঞ্জন দে। তিনি বলেন, দায়িত্বে অবহেলা করায় এসআই মনিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তদন্ত প্রায় শেষ। দ্রুতই প্রতিবেদন দেওয়া সম্ভব হবে।

জানা গেছে, একটি চুরির মামলায় বানিয়াচং উপজেলা সদরের নন্দীপাড়া গ্রামের মহির উদ্দিনের ছেলে গোলাম রাব্বানীকে (২৫) গত মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকালে গ্রেপ্তার করা হয়।

রাতে এশার নামাজের সময় পুলিশ থানা হাজতে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তাকে দেখতে পায় পুলিশ। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

পরে এ ঘটনায় নিহতের মা ফজর চান তার ছেলেকে থানা হেফাজতে নির্যাতনের পর হত্যার অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন পুলিশ সুপার।

বিষয়ঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

হাজতে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার: এসআই প্রত্যাহার

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৫:৪০:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে থানা হাজতে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি নির্যাতনের সত্যতা পায়নি। তবে এ ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে এসআই মনিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ঘটনার ৪ দিন পর রোববার (৩১ ডিসেম্বর) তাকে প্রত্যাহার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও তদন্ত কমিটির সদস্য পলাশ রঞ্জন দে। তিনি বলেন, দায়িত্বে অবহেলা করায় এসআই মনিরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তদন্ত প্রায় শেষ। দ্রুতই প্রতিবেদন দেওয়া সম্ভব হবে।

জানা গেছে, একটি চুরির মামলায় বানিয়াচং উপজেলা সদরের নন্দীপাড়া গ্রামের মহির উদ্দিনের ছেলে গোলাম রাব্বানীকে (২৫) গত মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকালে গ্রেপ্তার করা হয়।

রাতে এশার নামাজের সময় পুলিশ থানা হাজতে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তাকে দেখতে পায় পুলিশ। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

পরে এ ঘটনায় নিহতের মা ফজর চান তার ছেলেকে থানা হেফাজতে নির্যাতনের পর হত্যার অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন পুলিশ সুপার।